Bangla24.Net

শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ , ১০ ফাল্গুন ১৪৩০

১৯ আসন

সিলেটে এমপি হতে চান ১৬১ জন

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমাদান সম্পন্ন হয়েছে। সারাদেশের মতো সিলেট বিভাগের ১৯টি আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন বিভিন্ন আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীরা।

সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জের ১৯টি আসনে মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে ১৬১টি। তার মধ্যে বিভিন্ন দলের প্রার্থী ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন।

সিলেট জেলার ৬টি আসনে মোট ৪৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিষয়টি বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) রাতে সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন সিলেটের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. রাসেল হাসান। তবে তিনি প্রার্থীদের নাম জানাতে পারেননি।

জেলা প্রশাসক মো. রাসেল হাসান জানান, সিলেটের ৬টি আসনে ৪৮টি মনোনয়নপত্র জমা হয়েছে। এর মধ্যে সিলেট-১ আসনে ৮টি, সিলেট-২ আসনে-১৪টি, সিলেট-৩ আসনে ৮টি, সিলেট-৪ আসনে ৪টি, সিলেট-৫ আসনে ৮টি ও সিলেট-৬ আসনে ৬টি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছে।

মনোনয়নপত্র দাখিল করা দলগুলো হলো- আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, তৃণমূল বিএনপি, ইসলামী ঐক্যজোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি, বাংলাদেশ কংগ্রেস, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক জোট, গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগ।

মনোনয়নপত্র দাখিল করা প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ৬ জন, জাতীয় পার্টির ৫ জন, তৃণমূল বিএনপি ৬ জন, ইসলামী ঐক্যজোটের ৪ জন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ৩ জন, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ৩ জন, জাকের পার্টির ৩ জন, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক জোটের ২ জন, গণফোরামের ১ জন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের ১ জন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের ১ জন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের ১ জন এবং স্বতন্ত্র ১১ জন।

মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি ওমর ফারুক নাঈম জানিয়েছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজারের ৪টি সংসদীয় আসনে ৩২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), তৃণমূল বিএনপি, ইসলামী ঐক্যজোট, বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্ট, বিকল্পধারা, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটসহ একাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থী। এর মধ্যে মৌলভীবাজার-১ আসনে পাঁচজন, মৌলভীবাজার-২ আসনে ১০ জন, মৌলভীবাজার-৩ আসনে ১১ জন ও মৌলভীবাজার-৪ আসনে ৬ জন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

মৌলভীবাজার- ১ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য মো. শাহাবুদ্দিনসহ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মোট ৫ প্রার্থী। তাদের মধ্যে রয়েছেন, জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকে আহমেদ রিয়াজ উদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক আহমদ ও মো. ময়নুল ইসলাম ও তৃণমূল বিএনপির মো. আনোয়ার হোসেন।

মৌলভীবাজার-২ আসনে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ একেএম সফি আহমদ সলমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো. আব্দুল মতিন, তৃণমূল বিএনপি থেকে এম এম শাহীন, জাসদের বদরুল হোসেন, ইসলামী ঐক্যজোট থেকে মাওলানা আছলাম হোসাইন রাহমানী, বিকল্পধারার মো. কামরুজ্জামান সিমু এবং ইসলামী ফ্রন্টের এনামুল হক মাহতাব, জাতীয় পার্টি থেকে মাহবুব আলম ও আব্দুল মালিক মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

মৌলভীবাজার-৩ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জিল্লুর রহমানসহ মোট ১১ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এম এ রহিম সিআইপি, জাসদের আব্দুল মছব্বির, ওয়ার্কাস পার্টির তাপস কুমার ঘোষ, জাতীয় পার্টির রুহুল আমিন ও মো. আলতাফুর রহমান, সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের ফাহাদ আলম, ইসলামী ফ্রন্টের আব্দুর রউফ, জাকের পার্টির মোহাম্মদ আব্দুল কাইয়ুম, এনপিপির আবু বক্কর ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদেক আহমদ।

মৌলভীবাজার-৪ আসনে মোট মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ৬ জন প্রার্থী। এর মধ্যে এই আসনের ছয়বারের সংসদ সদস্য সাবেক হুইপ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা উপাধ্যক্ষ ড. আব্দুস শহীদ, জাতীয় পার্টির নেতা মো. মস্তান মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম, ইসলামি ঐক্যফ্রন্টের আ. মুহিদ হাসানী এবং ইসলামিক ঐক্যজোট মো. আনোয়ার হোসাইন ও জাকের পার্টির মুহিবুর রহমান আজাদ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

সুনামগঞ্জ : সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি সোহানুর রহমান সোহান জানিয়েছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের ৫টি আসন থেকে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ৪১ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন।

সুনামগঞ্জ -১ আসন থেকে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন ৯ জন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী রণজিত চন্দ্র সরকার, স্বতন্ত্র প্রার্থী সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, গণফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. জাহানুর রশীদ, সেলিম আহমদ, সুপ্রিম পার্টির হারিছ মিয়া, বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির নবাব সালেহ আহমেদ, তৃণমূল বিএনপির মো আশরাফ আলী ও বিকল্প ধারার মো রফিকুল ইসলাম চৌধুরী।

সুনামগঞ্জ -২ আসন থেকে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ৬ জন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা, গণতন্ত্রী পার্টির মিহির রঞ্জন দাস, ঋতেশ রঞ্জন দেব, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মিজানুর রহমান ও ড. মো. সামসুল হক চৌধুরী।

সুনামগঞ্জ-৩ আসনেও ৬ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এম এ মান্নান, তৃণমূল বিএনপি মনোনীত মো. শাহিনুর পাশা চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মাহফুজুর রহমান খালেদ, জাকের পার্টির মো. নজরুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী তৌফিক আলী ও জাতীয় পার্টির তালুকদার মো. মকবুল।

সুনামগঞ্জ -৪ আসনে ৮ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক পিএসসি চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. এনামুল কবীর ইমন, স্বতন্ত্র মো. মোবারক হোসেন, জাসদের আবু তাহের মো. রুহুল ইসলাম, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মোহাম্মদ দিলোয়ার, বিএনএম’র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য দেওয়ান শামসুল আবেদীন ও বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির আবু ফজল মো. মাসউদ।

সুনামগঞ্জ -৫ আসনে ১২ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের মহিবুর রহমান মানিক, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের মো. আশরাফ হোসেন, জাকের পার্টির শেখ ইয়াকুব আলী, গণফোরামের আইয়ুব করম আলী, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির আবু সালেহ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আজিজুল হক, জাতীয় পার্টির মো. নাজমুল হুদা, স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম আহমদ চৌধুরী , আইয়ুব করম আলী, জাতীয় পার্টির মনির উদ্দিন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মো. আব্দুল জলিল ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের সাচ্চু বিশ্বাস।

হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি আজহারুল ইসলাম মুরাদ জানিয়েছেন, ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে হবিগঞ্জের ৪টি আসনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টিসহ ৪০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জেলা রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক দেবী চন্দ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে ৮ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. মুশফিক হোসেন চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি কেয়া চৌধুরী, জাতীয় পার্টির দলীয় প্রার্থী সাবেক এমপি আব্দুল মুনিম চৌধুরী বাবু, গাজী মোহাম্মদ শাহেদ, ইসলামী ঐক্যজোটের মোস্তাক আহমেদ ফারহানী, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মো. নুরুল হক, জাকের পার্টির ইয়াসমিন আক্তার মুন্নী ও ইসলামী ফ্রন্ট বাংলাদেশর মো. মনিরুল ইসলাম চৌধুরী,

হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনে ১১ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ময়েজ উদ্দিন রুয়েল, বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ খান, জাতীয় পার্টির দলীয় প্রার্থী শংকর পাল, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাক আহেমদ, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মনমোহন দেবনাথ, ইসলামী ঐক্যজোটের শেখ হিফজুর রহমান, তৃণমূল বিএনপির খাইরুল আলম, বিএনএম’র এসএএম সোহাগ, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, তৃণমূল বিএনপির মোহাম্মদ সাদিকুর মিয়া তালুকদার ও বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. জিয়াউর রশিদ।

হবিগঞ্জ-৩ (সদর-লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ) আসনে ১১ জনমনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মো. আবু জাহির, জাতীয় পার্টির এম এ মুমিন চৌধুরী বুলবুল, স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ উদ্দিন আহমেদ, বিএনএম’র মো. বদরুল আলম সিদ্দিকী, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের মো. আদম আলী, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আব্দুল কাদির, জাকের পার্টির আনসারুল হক, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মো. আবদুল ওয়াহেদ, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. নোমান হাসান, বাংলাদেশ জাতীয় কংগ্রেসের মোছা. শায়েমা বেগম ও মুক্তিজোটের মো. শাহিনুর রহমান।

হবিগঞ্জ-৪ (মাধবপুর-চুনারুঘাট) আসনে ১০ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বিমান ও পর্যাটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন, জাতীয় পার্টির আহাদ উদ্দিন চৌধুরী, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আল আমিন, ইসলামী ঐক্যজোট বাংলাদেশের আবু ছালেহ, বিএনএম’র মো. মুখলেচুর রহমান, জাকের পার্টির সৈয়দ আবুল খায়ের, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. জামাল হোসেন, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মো. আব্দুল মুমিন ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক ঐকজোটের মো. রাশেদুল ইসলাম খোকন।

নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী- রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ছিল ৩০ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচারণার শেষ হবে ৫ জানুয়ারি সকালে। ৩০০ আসনে ভোটগ্রহণ অনুষ্টিত হবে ৭ জানুয়ারি।

শেয়ার