Bangla24.Net

শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাকা আত্মসাত, র্যাব’র জালে বন্দি মূলহোতা

সিলেটের ৪ হজযাত্রীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অন্তত ৪৪ হজযাত্রীর টাকা আত্মসাতের মামলায় ঢাকার সাজিদ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস এজেন্সির মালিক অহিদুল আলম ভূঁইয়াকে (৫০) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রোববার (১৩ আগস্ট) রাতে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকায় র‌্যাব-২ ও র‌্যাব-৯ যৌথ অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে ।

র‌্যাব জানায়, চলতি বছরের হজ পালনে সৌদি আরবে পাঠানোর নামে রাজধানীর কুড়িল এলাকার সাজিদ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস এজেন্সির মালিক অহিদুল আলম ভূঁইয়া, তার ছেলে সাজিদুল ইসলাম ও শ্যালক মো. শফিকুল ইসলাম ৪৪ জন হজযাত্রীর কাছ থেকে বিভিন্ন অংকের টাকা নেয়। কিন্তু তাদের হজে না পাঠিয়ে প্রায় ৩ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে আত্মগোপনে চলে যান তারা।

হজের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গত ২৫ জুলাই সিলেট কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন সিলেট নগরীর কুয়ারপারের আব্দুল কাইয়ুম খাঁনের ছেলে রেজাউল করিম খাঁন (৩৪)। মামলায় আসামিরা হলেন- সাজিদ ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেলস এজেন্সির মালিক অহিদুল আলম ভূঁইয়া, তার ছেলে সাজিদুল ইসলাম ও অহিদুল ইসলামের শ্যালক মো. শফিকুল ইসলাম। অহিদুল নরসিংদী জেলার মনোহরদি থানার মৃত আফতাব উদ্দিনের ছেলে।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, অহিদুল আলম ভূঁইয়া তার পূর্বপরিচিত। এ সুবাধে অহিদুল জানান তার এজেন্সির মাধ্যমে পবিত্র হজ পালনে লোক পাঠিয়ে থাকেন। এর প্রেক্ষিতে বাদী রেজাউল ৬ লাখ ৪৪ হাজার ৩৩৫ টাকা করে সিলেটের ৯ জনকে হজে পাঠানো বাবদ ৫৭ লাখ ৯৯ হাজার ১৫ টাকা তুলে দেন ট্রাভেলস এজেন্সির মালিকের কাছে। পরে ওই এজেন্সি ৫ জনকে হজে পাঠালেও ৪ জনের টাকা আত্মসাত করে। এমনকি পাসপোর্টও ফেরত দেয়নি।

র‌্যাব আরো জানায়, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন থানায় পাঁচটির বেশি মামলা রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-২ এর একটি আভিযানিক দল র‌্যাব-৯ এর তথ্য সহায়তায় অভিযান চালিয়ে অহিদুলকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে টাকা আত্মসাৎ করার কথা স্বীকার করেছেন অহিদুল।

শেয়ার