Bangla24.Net

শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাউশির চিঠিতে আরও ক্ষুব্ধ শিক্ষকরা

ছবি : সংগৃহিত

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেসরকারি মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে অবস্থান ধর্মঘট পালন করছেন শিক্ষকরা। এ আন্দোলন চলা অবস্থায় মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) করোনার শিখনঘাটতি রোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের উপস্থিতি নিশ্চিতে কঠোর নির্দেশ দেয় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

কিন্তু ওই নির্দেশনায় আরও ক্ষুব্ধ শিক্ষকরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার (১৯ জুলাই) সকালে নবম দিনের মতো অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেন শিক্ষকরা।

প্রেসক্লাবের সামনে ফুটপাতে বসে বক্তব্য দিচ্ছেন শিক্ষক নেতারা। আর কদম ফোয়ারা থেকে পল্টন মোড় পর্যন্ত শিক্ষকরা অবস্থান করে হাততালি ও স্লোগান দিচ্ছেন। তাদের এই আন্দোলনের ফলে তোপখানা সড়কের পল্টন-কদম ফোয়ারা এবং কদম ফোয়ারা-পল্টন মোড় অংশে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে করে এই পথে চলাচল করা যানবাহনগুলোকে আব্দুল গণি সড়ক ব্যবহার করে চলাচল করতে হচ্ছে। আর ভোগান্তিতে পড়ছেন ওই পথের যাত্রীরা।

বাসযাত্রী জোবায়ের হাসান জয় বলেন, প্রেসক্লাবের সামনে রাস্তা বন্ধ। তাই মৎস্যভবন পর্যন্ত রাস্তা জ্যাম হয়ে গেছে। শুনলাম এই বাস সচিবালয়ের সামনে দিয়ে ঘুরে জিরো পয়েন্ট মোড়ে যাবে। সেখান থেকে পায়ে হেঁটে আবার অফিসে আসতে হবে আমাকে। শহরে এরকম আন্দোলন-সমাবেশ সত্যিই ভোগান্তির।

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির (বিটিএ) ডাকে গত ১১ জুলাই থেকে প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছেন শিক্ষকেরা। এরই ধারাবাহিকতায় ফের বুধবার সকাল থেকেই জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের রাস্তা অবরোধ করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন তারা। দাবি আদায়ের জন্য মঞ্চে বক্তব্য দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় ও বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা। এছাড়া আন্দোলনরত শিক্ষকদের স্লোগানে উত্তপ্ত পুরো প্রেসক্লাব এলাকা।

শিক্ষকদের এই আন্দোলনের অংশ হিসেবে গত রোববার ও সোমবার সারাদেশে ক্লাস বন্ধ রেখে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়। লাগাতার অবস্থানের একপর্যায়ে সোমবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন মাউশির মাধ্যমিক ও কলেজ শাখা পরিচালক, একজন উপপরিচালক ও পুলিশের কয়েকজন সদস্য।

টানা আড়াই ঘণ্টার বৈঠকে শিক্ষক প্রতিনিধিদের দাবির বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা এবং আলোচনা করে সমাধানের আশ্বাস দেন মাউশি মহাপরিচালক। এ সময় তিনি চলমান আন্দোলন স্থগিতের জন্য শিক্ষক নেতাদের অনুরোধ করেন। তবে বৈঠক থেকে বের হয়ে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির নেতারা।

অন্যদিকে আন্দোলনের ৮ম দিনের মাথায় করোনার কারণে শিক্ষার্থীদের শিখন ঘাটতি রোধে ব্যবস্থা নেওয়াসহ পাঁচ দফা নির্দেশনা দেয় মাউশি। এসব নির্দেশনা না মানলে ব্যবস্থা নেয়ারও ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

সূত্র-ঢাকা পোস্ট

শেয়ার